‘ক্যাম্পাসে ঢাবি প্রক্টরের ভূমিকা অনেকটা ছাত্রলীগের মতো’

266

ভিপি নুর ও তার সঙ্গীদের ওপর হা’মলায় ঢাবি প্রশাসনের অসহযোগিতার কারণ অভিযোগ করে নুর বলেন, প্রথম হা’মলার সময় আমি ভিসি-প্রক্টরকে ফোন দিয়েছিলাম। তারা কেউ ফোন ধরেননি।

প্রতিটা ঘটনার সময় প্রক্টরকে ফোন দেই। উনি সবই জানেন, কিন্তু ফোন ধরেন না।নুর বলেন, সব ঘটনায় উনি (প্রক্টর) অবগত আছেন, কিন্তু ব্যবস্থা নেন না। আমাকে অনেকে বলেছে যে, প্রক্টর অন্য ছাত্র সংগঠনকে বলেছে যে, ‘নুরদের কেন আমরা স্পেস দিচ্ছি। প্রক্টরের ভূমিকা ক্যাম্পাসে অনেকটা ছাত্রলীগের মতোই।’

তিনি বলেন, হা’মলার ঘটনা এটাই প্রথম নয়। একাধিকবার ঘটেছে। আ’ লীগের নেতাকর্মী, গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন আমাকে নিষেধ করেছে, আমি যেন শেখ হাসিনার সরকারের বিরুদ্ধে কথা না বলি। কারণ তারা মালয়েশিয়ার মতো আরও ১০ বছর দেশ শাসন করবে। এজন্য যদি ২০ হাজার মানুষ মেরে ফেলতে হয় তারা মেরে ফেলবে। আর দু-একজন নুরকে মেরে ফেললে কী যাবে তাদের?

‘আমি তাদের কথা শুনি না, সরকারের দুঃশাসন, ছাত্রলীগের স’ন্ত্রাসী কার্যক্রম, ভারতের চুক্তি নিয়ে পোস্ট দেওয়া, আবরারের মৃত্যু, নুসরাত হ’ত্যা এবং গতকাল (২২ ডিসেম্বর) এনআরসি নিয়ে প্রতিবাদ করায় হা’মলার শিকার হলাম।