নিজ বিশ্ববিদ্যালয় বাসে যৌন হয়রানির শিকার কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী!

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসে যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। বুধবার (১৮ ডিসেম্বর) বাস চালক খোকা মিয়া হয়রানি করে বলে বৃহস্পতিবার সকালে প্রক্টর বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী ছাত্রী। ভুক্তভোগী একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষে অধ্যয়নরত।

জানা গেছে, বুধবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী পরিবহনের জন্য বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশন (বিআরটিসি) থেকে ভাড়া করা ৯ নং বাসে এ ঘটনা ঘটে। ভোক্তভোগী শিক্ষার্থী অসুস্থতার কারণে ১২ টায় ক্যাম্পাস থেকে শহরে যাওয়ার বাসে উঠে বসে ছিলেন। বাসে উঠে বসার পরে ঘুম চলে আসে শিক্ষার্থীর। ঘুম ভাঙ্গার পর ঐ শিক্ষার্থী দেখেন বাস নির্দিষ্ট সময়ের আগে বেলতলী বিশ্বরোড এলাকায় চলে আসে। বাস চালক ও তার সহকারী ছাড়া বাসে কেউ ছিলোনা। বাস কোথায় যাচ্ছে এমন প্রশ্ন করলে মামা জবাব দেন বেলতলিতে একটা বাস নষ্ট হয়ে আছে সেখানে যাচ্ছি। আবার ক্যাম্পাসে ফিরে যাব।

কিন্তু বাসটি ক্যাম্পাসে না এসে গ্যাস নিয়ে শহরে যাবে বলে ফিলিং স্টেশনে যায়। বাস চালক তখন আবার বলে আমাদের দেরি হবে আমরা ১ টায় ক্যাম্পাসে ফিরবো শহরে যাবো ২ টার দিকে। তারপর তিনি (বাস চালক) আবার বলেন, আপনাদের তো কাল থেকে ক্যাম্পাস বন্ধ। অনেক বিভাগ কক্সবাজার ট্যুরে যাবে। আপনি (ভোক্তভোগী) যাবেন? তখন ভোক্তভোগী শিক্ষার্থী যাবে না বললে বাস চালক আবার বলেন ‘আমি যাবো যাওয়া আসা ফ্রি, থাকা খাওয়া শুধু নিজের। ২-৩দিন থাকব। আপনি গেলে আপনার সাথে দেখা হবে।

ভোক্তভোগী শিক্ষার্থী অভিযোগ করে বলেন, বাস চালক আমার কাছে ফোন নাম্বার চায় এবং কক্সবাজার যাওয়ার আগে আমাকে ফোন করে জানতে চাইবে আমি যাবো কিনা বলে জানান। তখন ভোক্তভোগী শিক্ষার্থী আমি যাবো না বলার পরেও কেনও নাম্বার চাচ্ছেন বললে বাস চালক বলেন, আচ্ছা নাম্বার না দিলে না দিবেন। জোর করব না। তারপর চালক দাঁড়িয়ে সহকারীকে টি শার্ট বুকের উপর তুলে পেট খালি পেটে কিছু নাই বলে। শিক্ষার্থীকে আবার বলেন দেখেন ওরা আমার পেটকে হিংসা করে। ভোক্তভোগী শিক্ষার্থী বলেন, ‘আমি তখন বাস থেকে নেমে যাই। চালক তখন পিছনে এসে বলে আপনি নাম্বারটা দিলেন না। আপনাকে কক্সবাজার যাওয়ার আগে ফোন দিতাম। আর আমার তো ইচ্ছা করতেছে আমি একাই আপনাকে শহরে নিয়ে যাই।’ ভোক্তভোগী শিক্ষার্থী বলেন, ‘আমি ভয়ে ও লজ্জায় কি করবো বুঝতে পারছিলাম না, তাড়াতাড়ি সেখান থেকে চলে আসি।’

এ ঘটনার পর বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই উত্তেজিত শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসের মূলফটক তালা দিয়ে অবস্থান নেয়। এসময় বাসে শিক্ষার্থীকে হয়রানির প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শহরমুখী বাস বন্ধ করে রাখেন তারা। পরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর বরাবর লিখিত দেয় ভোক্তভোগী শিক্ষার্থী। শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বললে তারা জানান, এই ধরণের ঘটনার শিকার যাতে আর কাউকেই হতে না হয় তার জন্য দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানাচ্ছি। পরবর্তীতে যাতে সামনে থেকে কেউ এমন সাহস না পায়।

অভিযুক্ত বাস চালক খোকা মিয়ার নিয়োগাদেশ বাতিল করেছে বিআরটিসি কর্তৃপক্ষ। বিআরটিসি কুমিল্লা বাস ডিপোর ম্যানেজার (অপারেশন) স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা গেছে। অভিযোগের বিষয়ে বাস চালক খোকা মিয়া বলেন, আমাদের বিআরটিসি বাস কক্সবাজার যায়। কখনও যদি (উনি) যায়, আমরা চালক হিসেবে যাই একথা বলেছি। কিন্তু তাকে যেতে বলিনি। শার্ট বুকের উপরে উঠিয়ে ফেলার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি অন্য একজনের সাথে দুষ্টুমি করছি।

সদর দক্ষিণ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নজরুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি জানার সাথে সাথেই আমরা দোষীকে আইনের আওতায় আনতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। আশা করি তাকে দ্রুত সময়ের মধ্যে গ্রেফতার করা হবে। প্রক্টর ড. কাজী মোঃ কামাল উদ্দিন বলেন, ভোক্তভোগী শিক্ষার্থী আমাদের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছে। আমরা পুলিশ প্রশাসনের সাথে কথা বলেছি। দ্রুত সময়ের মধ্যে তাকে আটক করে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে শাস্তি নিশ্চিত করার চেষ্টা করছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *