র‌্যাগিংয়ে প্রতিবাদ করায় ছাত্রীকে নি’র্যাতনের পর আত্মহ’ত্যার চেষ্টা

স্টাফ রিপোর্টার: আমেনা আক্তার নামে এক শিক্ষার্থী বরিশাল ইনস্টিটিউট অব হেলথ টেকনোলজির (আইএইচটি) ছাত্রী হোস্টেলে র‌্যাগিংয়ের শিকার হয়ে আত্মহ’ত্যার চেষ্টা করেছেন। তাকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে (শেবাচিম) ভর্তি করা হয়েছে।

শুক্রবার (২৫ অক্টোবর) দিনগত রাতে আইএইচটি ক্যাম্পাসে আমেনা র‌্যাগিংয়ের শিকার হন বলে অভিযোগ উঠেছে। তিনি প্রতিষ্ঠানটির ফিজিওথেরাপি অনুষদের দ্বিতীয়বর্ষের ছাত্রী।
এদিকে, র‌্যাগিং ও আত্মহ’ত্যাচেষ্টার ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। ইনস্টিটিউটের উপাধ্যক্ষ ডা. শুভাঙ্কর বাড়ৈকে প্রধান করে গঠিত তদন্ত কমিটিকে আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

আইএইচটি অধ্যক্ষ ডা. সাইফুল ইসলাম, তদন্ত কমিটির সদস্য ও সহকারী হোস্টেল সুপার সুবোধ রঞ্জন মণ্ডল এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
জানা গেছে, হোস্টেলের ফিজিওথেরাপি অনুষদের তৃতীয় বর্ষের সিনিয়র ছাত্রীরা দ্বিতীয় ও প্রথম বর্ষের ছাত্রীদের বিভিন্নভাবে র‌্যাগিং করে আসছিল। এ বিষয়ে সম্প্রতি একটি ফেসবুক গ্রুপে পোস্ট দেন আমেনা আক্তার।
সেটি সিনিয়রদের চোখে পড়লে ক্ষুব্ধ হয় তারা। এর জেরে শুক্রবার সন্ধ্যার পরে ফিজিওথেরাপি অনুষদের তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী লামমিমের নেতৃত্বে কয়েক শিক্ষার্থী আমেনাকে ডেকে মারধর ও অশালীন ভাষায় গালিগালাজ করেন।
এ ঘটনার জেরে নি’র্যাতনের শিকার আমেনা মাত্রাতিরিক্ত ওষুধ সেবন করে আত্মহ’ত্যার চেষ্টা করেন। রুমমেটরা বিষয়টি বুঝতে পেরে রাত ১০টার দিকে তাকে শেবাচিমে ভর্তি করে।

আইএইচটি ছাত্রী হোস্টেলের সহকারী সুপার সুবোধ রঞ্জন মণ্ডল বলেন, একটি ফেসবুক স্ট্যাটাস নিয়ে এই ঘটনা ঘটেছে। অভিযুক্ত শিক্ষার্থীরা দাবি করেছে, আমেনা আইএইচটি ক্যাম্পাসের বদনাম করে ওই স্ট্যাটাসটি দিয়েছে। এজন্য লামমিমের নেতৃত্বে কয়েক ছাত্রী তাকে ডেকে নিজ ক্যাম্পাসের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের কারণ জানতে চায় ও এ নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়।

এর জেরে অভিমান করে আমেনা নাপা ট্যাবলেট সেবন করে অসুস্থ হয়ে পড়ে বলে দাবি অভিযুক্তদের। তাছাড়া, আত্মহ’ত্যার চেষ্টা করা আমেনার বিরুদ্ধেই তারা অধ্যক্ষ বরাবর পাল্টা অভিযোগ দিয়েছে বলে জানান সুবোধ রঞ্জন মণ্ডল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *