“প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী খালেদা জিয়া” বলার পরে হট্টগোল শুরু !

স্টাফ রিপোর্টার
গত ১৩ অক্টোবর সরকারি বরাদ্দে মাদরাসার উন্নয়ন প্রসঙ্গে বক্তব্য দেওয়ার সময় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে উল্লেখ করে তোপের মুখে পড়েছেন সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার গুমনতলি ফাজিল মাদরাসার অধ্যক্ষ। পরে উপস্থিত মানুষ ও রাজনৈতিক নেতাদের তোপের মুখে ক্ষমা চেয়ে অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করেন তিনি।

ঘটনার এখানেই সমাপ্তি ঘটেছিল না, পরে ১৪ অক্টোবর সেই অধ্যক্ষকে সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার গুমানতলি ফাজিল মাদরাসা থেকে বরখাস্ত করা হয়। এবার একই ধরণের ঘটনার পুণরাবৃত্তি ঘটলো খোদ সাবেক অর্থমন্ত্রী মুহিতের অনুষ্ঠানে ।

আগামী ৮ নভেম্বর সিলেট আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিশ্বকবি রবি ঠাকুরের সিলেট ভ্রমণের শতবর্ষপূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত স্মরণোৎসবে যোগ দেবেন তিনি। এ উপলক্ষে আজ সোমবার বিকালে রবীন্দ্র শতবর্ষ উদযাপন কার্যকরী পরিষদের আহ্বায়ক সাবেক মন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এক ব্রিফিংয়ের আয়োজন করেন। মুহিতের নিজ বাড়ি সিলেট নগরীর হাফিজ কমপ্লেক্সে এ প্রেসব্রিফিংয়ের আয়োজন করা হয়। স্মরণোৎসব অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপস্থিত থাকবেন বলে জানান কমিটির আহ্বায়ক আবুল মাল আব্দুল মুহিত।

এরপর আহ্বায়ক কমিটির যুগ্ম সদস্য সচিব আমিনুল ইসলাম চৌধুরীকে কর্মসূচি তুলে ধরার আহ্বান জানান তিনি। কর্মসূচি ঘোষণার সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উৎসবে আসবেন- একথা বলতে গিয়ে আমিনুল ইসলাম ভুল করে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী খালেদা জিয়া’ অনুষ্ঠানে আসবেন। এরপর হট্টগোল শুরু হলে আমিনুল ইসলাম ভুলের জন্য দু:খ প্রকাশ করেন।

আহ্বায়ক মুহিতের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি পরে শান্ত হয়ে আসে। এসময় সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, মানুষের ভুল সব সময় হয়। দিস ওয়াজ এ গ্রেট মিস্টেক অফকোর্স। কারণ শেখ হাসিনা এখন থার্ড কনজিকুউটিভ টার্ম। তার আগেও একবার ছিলেন। এখন বোধ হয় শেখ হাসিনার প্রাইম মিনিস্টারশিপ খালেদা জিয়ার থেকে বেশি সময় হয়ে গেছে। এটা আপনারা ক্ষমা করে দেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *